Sunday, November 20, 2016

‘Dr Hazarika’s creations have establish peace’

GUWAHATI, Nov 14 - Dr Bhupen Hazarika Foundation (BHF) organised an interactive panel discussion and lecture on the creations of Dr Bhupen Hazarika at Kumar Bhaskar Natya Mandir in association with Kamrup Natya Samity, Pragjyotish Communication and Axom Sahitya Samaj recently.
Dr Irom Gambhir Singh, Professor of English, Manipur University who has been working on different cultures of the North East, was the resource person on the occasion. He said that Dr Hazarika’s creations worked towards establishing peace and harmony amongst different tribes and communities of the North East, and that his ideals were quite relevant in countering violence in today's strife-torn world.

Many of Dr Hazarika’s immortal creations have already been translated to Manipuri and Tai languages by Dr Singh.

Singer Dolly Ghosh inaugurated the event by rendering a song on Dr Bhupen Hazarika, written by Pranabendu Debnath and set to tune by Sourav Mahanta. Social worker Dhiren Baruah, noted writer and advocate Dilip Kumar Hazarika and Biraj Sarma made short speeches on the life and achievements of Dr Hazarika.

Children from different schools of the city also participated in the event.

Educationist Dr Amarjyoti Choudhury in his address used the metaphor of the seven basic notes of Hindustani classical music to present an enlightening synopsis on ‘the various sources of Dr Bhupen Hazarika’s musical creations.’ He mentioned that Dr Hazarika’s creations were greatly influenced by the three pillars of Assamese literature and culture, i.e. Rupkonwar Jyotiprasad Agarwalla, Kalaguru Bishnu Prasad Rabha and Natasurjya Phani Sarma.

“The higher education received by Dr Hazarika at Banaras Hindu University and Columbia University enriched his intellectual capabilities. His creations were also influenced by his association with the ITPA and the City of Joy, Kolkata. He was able to project and place himself at a unique platform as one of the best contemporary artistes by virtue of his being born at Sadiya, his interactions with different communities not only from the North East, but also across the globe and his association with people like Paul Robson,” he observed.

Naturalist and writer Dr Haricharan Das emphasised on the importance of Dr Hazarika’s post- doctoral thesis at Columbia University ‘The role of audio-visual media in adult education in India’ in the present context and its relevance.


Earlier, Dipanka Hazarika, general secretary of BHF spoke about the aims and objectives of Dr Bhupen Hazarika Foundation. Former MP Indramoni Bora, economist Dr Jayanta Madhav, agricultural scientist Dr Mokhada Prasad Borthakur, Dr Roman Sarma, Dr Ankuran Dutta, Santanu Roy Choudhury, Utpal Bezbarua, Rupjyoti Hazarika, Aksad Ali Mir, Manju Devi Pegu, Nilima Das, Putli Kayastha, Runumi Lahkar, Dr Sangita Choudhury and Kiran Baruah spoke on the occasion.

Sunday, November 6, 2016

Bhupenda remembered on fifth death anniversary

GUWAHATI, Nov 5 - The State today remembered and paid homage to their beloved music maestro Dr Bhupen Hazarika on his fifth death anniversary.

Attending a function at the Dr Bhupen Hazarika Samadhi Kshetra (memorial) at Jalukbari here, Chief Minister Sarbananda Sonowal today said that the ideals of Dr Hazarika would forever shine as a beacon for the Assamese society and urged the young generation to contribute meaningfully to society by emulating his ideals.

Recollecting Dr Hazarika’s contributions in strengthening the bond among the different communities and tribes of the State, Sonowal said that transcending the boundaries of country and region, Dr Hazarika was able to establish the Assamese identity on the global cultural map and introduced the world to the unique music and culture of the land.

“It was the dream of Dr Hazarika to build a greater Assamese society based on humanitarian values and we must strive hard to realise his dreams following his ideals of universal brotherhood,” he said.

Terming Dr Hazarika as a global icon similar in stature to the likes of Paul Robson and Nelson Mandela, Chief Minister Sonowal said that the youth of the State must get inspired by the ideals of the cultural doyen to establish Assam among the top states in the country and also defend the age-old unity and harmony of the Assamese society in the face newer challenges.

“Dr Hazarika was the voice of the oppressed and downtrodden, fighting for justice and equality. The government is mindful of the difficulties of the common people and has undertaken many activities for the uplift of the underprivileged sections of society,” he said.

The All Assam Students’ Union (AASU) also celebrated the occasion near the statue of the maestro at Dighalipukhuripar. It held a homage-paying ceremony and garlanded the statue in the morning. It was followed by the community lighting of 10,000 earthen lamps in the evening along the entire stretch of the Dighalipukhuri water-body.

The AASU leaders present on the occasion including president Dipanka Nath, general secretary Lurinjyoti Gogoi and adviser Dr Samujjal Bhattacharya urged the people to be inspired by and carry forward the legacy of Dr Hazarika.

At the Nehru Stadium here, Sanskar Bharati organized a mass song recitation by over 10,000 students against terrorism in the presence of Governor Banwarilal Purohit and Chief Minister Sarbananda Sonowal. The students from various schools of the city and its nearby places sang a song titled Atankabad husiyar (Terrorism Be Warned) written by Dr Hazarika.

The Governor in his address termed Dr Hazarika as a legendary musician who strove all his life to uphold humanism through his songs, and exhorted the children and youth to follow the ideals of humanism and brotherhood as espoused by his unparalleled music.

The University of Science and Technology, Meghalaya (USTM) on the outskirts of the city celebrated the occasion in association with the Asam Sahitya Sabha. Sabha president Dr Dhurbajyoti Borah, the chief guest of the event, asserted that the Sabha had been working to create a sense of belonging and a sense of togetherness among the people of the region irrespective of their ethnic origin, religion, or creed. He cited the example of the tea-garden labours, Nepalese community and Muslim peasants who had become a part of the larger Assamese community by adopting Assamese as their first or second or third language.


The All Assam Minorities Students’ Union (AAMSU) also held a memorial function near the Rajdhani Masjid here where 1,001 earthen lamps were lighted as a mark of respect to the maestro. The AAMSU leadership, including president of city committee, Minnatul Islam, voiced dissatisfaction over the failure of the government in according due respect to Dr Hazarika as evident from the slow pace of work at his Samadhi Kshetra even after five years of his death.

Fifth Death Anniversary : lighting of 10,000 earthen lamps along the entire stretch of the Dighalipukhuri by AASU











Photo Source : Niyomiya Barta , 06-11-2016

Dhanada Pathak gets Dr Bhupen Hazarika Xanhati award

GOLAGHAT (Dhekial), November 5: All Golaghat District Students’ Union and Bhupen Hazarika Smriti Suraksha Samiti organized Bhupen Hazarika’s fifth death anniversary with a day-long programme at the Golaghat Amateur Theatre Hall on Saturday.

The programmes included probhat pheri early in the morning, flag hoisting, smriti tarpan, naam prasanga and Bhupendra Sangeet competition among the students.

An open meeting along with felicitation programme was held where noted litterateur Dr Malini, AASU central committee assistant general secretary Monowar Hussain and organizing secretary  Raju Phukan were present. The meeting was presided over by senior journalist Dwipen Dutta and welcome speech was delivered by secretary of Bhupen Hazarika Smriti Suraksha Samiti, Rohit Gogoi. Dr. Malini delivered a brief speech on the contribution of Dr Bhupen Hazarika to society.

In the meeting prominent Lok Silpi Dhanada Pathak was awarded the Dr. Bhupen Hazarika Xanhati Bota which included felicitation letter, cheleng, japi, xarai, memento and cash amount of Rs 15,000.

Dhanada Patha hails from Rawli Xatra in Barpeta district. She is wife of famous folk musical singer Rameswar Pathak. She has sung and recorded more than 250 folk musical songs in traditional lyrics. She performed folk songs in various places of India like Delhi, Mumbai, Udaypur, Kashmir, Kalkatta, Haldia, Darjeeling and Agartala. She also performed these songs in presence of former Presidents of India Giani Jail Singh, VV Giri and R. Venkataraman, former Prime Minister PV Narasimha Rao and the King of Bhutan.


All Golaghat District Students’ Union and Bhupen Hazarika Smriti Suraksha Samiti have been giving away the Dr Bhupen Hazarika Xanhati Bota since 2013.

Saturday, November 5, 2016

Programmes to pay homage to Bhupenda

GUWAHATI, Nov 4 - Chief Minister Sarbananda Sonowal, other leading personalities and the public will offer tributes to Dr Bhupen Hazarika at a memorial function scheduled at 9 am tomorrow on the occasion of the death anniversary of the legendary singer at the Samadhi Kshetra, Jalukbari.

The All Assam Students’ Union (AASU) will observe the occasion by lighting 10,000 earthen lamps at Dighalipukhuripaar and hold a memorial function in front of Dr Hazarika’s statue there.


Sanskar Bharati is also organizing a mass song recitation by thousands of students against terrorism at the Nehru Stadium in RG Baruah Sports Complex from 9 am. It is expected that 30,000 students and citizens will gather to oppose terrorism and pay homage to Dr Hazarika on his death anniversary.



Source : Niyomiya Barta , 05-11-2016

Friday, November 4, 2016

Flashback : Front page of some of the Newspapers , November 2011

Click the image for bigger view , scroll down to see more , there are total 86 photograph

Wednesday, October 26, 2016

Majaw honoured with Bhupen Hazarika award

Guwahati: Popular musician Lou Majaw was presented the 4th Bhupen Hazarika National Award in the city on Monday. Governor of Assam Banwarilal Purohit presented the award to Lou at the governor house.

"I'm honoured and humbled. This is not just for me but for all songwriters," Lou said after receiving the award.

The award consists of a citation and a cheque of Rs 51,000. Known as India's Bob Dylan, Lou has been associated with music for the last five decades. Every year, he brings together folk and rock artistes from across the country together to celebrate Bob Dylan's birthday in Shillong. His efforts have brought together several musicians, besides reinforcing Shillong's status as the rock capital of the northeast.

When asked about his association with Bhupen Hazarika, Lou said they had known each other since the 1970s.

Purohit said Bhupen Hazarika was a towering and a great musician, singer, poet who projected Assam in the mainstream through art and culture.

The governor congratulated Majaw and said he has carved a niche for himself through his music. He asked Majaw to serve the nation through his music. "His songs should strengthen the spirit of patriotism in the young generation, inspiring the youth to take up music and make a difference to society," said Purohit.

Pune-based social organization Sarhad had instituted the award in 2012 in the name of Bhupen Hazarika, one of the greatest musical doyens from the region.

The award is given each year to those from the northeast who have been trying to connect the region with the rest of the country in their respective fields.


Assamese filmmaker Jahnu Barua was the first to receive the award.


Source : Amar Asom , 25/10/2016

Thursday, October 20, 2016

Bob and Bhupen, two of a kind

If one created new poetic expressions within the great American song tradition,the other did the same within the great Assamese folk tradition

As Bob Dylan has become the first singer-songwriter to win a Nobel Prize in literature, the feats of Bhupen Hazarika come to mind for the very simple reason that what one did through music for the English-speaking world the other did for Assamese and Bengali.

Bhupen Hazarika was born in 1926, and Bob in 1941, both basically singer-songwriters. If Bob Dylan created new poetic expressions within the great American song tradition, Bhupen Hazarika did the same within the great Assamese folk song tradition. Both started their careers with folk music.

What sets apart both of them is not that their songs are fundamentally different from other songs. What makes them the greatest musicians they are is the fact that they transformed music into hope for humanity with their powerful lyrics and unique voice. They wrote lyrics, tuned them in accordance with the themes and sang them so much better than anyone else. In them, we can see the confluence of two autonomous territories: music and literature. Their use of language in their songs must be recognised as of central importance. Every word in the songs is precisely selected. That is why most of their songs are recognised as beautiful poetry. To make the themes of their songs come to life, they use appropriate imagery in them.

Some people may argue about the rightness of bestowing the biggest prize for literature upon Bob Dylan on the ground that his celebration does not particularly help the publishing industry. Some poets may argue that his lyrics don't have much intellectual appeal. But no one can deny the simple fact that with his powerful lyrics on the burning problems of the world, Bob single-handedly transformed music into hope for humanity in the 20th century English-speaking world. He has drawn the people of his generation into thinking whether the reality of the generation needs to be changed. He, in his chosen genre, has persistently tried to the best of his ability to wash the dust of lives off the souls of people. In the process, he has created a myth for his people to live by; he has compelled his people to feel the complexity of life in the 20th century setting so that they realise in the right perspective the path to progress. This explains why he is a household name across the globe.

At last, the Swedish Academy had to acknowledge that. The academy rightly says that he has “created new poetic expressions within the great American song tradition”. His songs inspire the highly intellectual class and the common people alike.............

Monday, October 17, 2016


Source : Niyomiya Barta , 16/10/216

Saturday, September 24, 2016

Tripura: Meet Manisha Hazarika, the passionate propagator of Bhupendra sangeet

AGARTALA:  It was Bhupen Hazarika’s unique style of penning songs that immortalized his creations as ‘Bhupendra Sangeet’ when he was a living legend. Known for portraying the social life of Assam and voicing for commoners, Hazarika was undoubtedly a people’s artist. Musicians say that the great singer will be remembered for his versatility.

‘Music is my life, my family and I want to dedicate my life for music.’ Generally, music artists or music lovers utter the line to make others understand the strong bond between them and the music. But there is one singer who has decided to spread songs written by her elder brother-in-law to each and every corner of the country and global as well. She is Manisha Hazarika.


Priyanka Deb Barman from TNT- The Northeast Today met Manisha Hazarika during her one-day stay in Agartala. Born in a music background family in Kolkata, Manisha got married to renowned Assam-based music composer Jayant Hazarika, younger brother of music maestro Bhupen Hazarika when she was 19 years old. She discovered her as luckiest woman who got a platform to nurture her talent in her in-laws’ house.......


Source : niyomiyabarta.org , 24Sep2016

Friday, September 16, 2016

Thursday, September 15, 2016

Saturday, September 10, 2016

State remembers Jajabor on 90th birth anniversary

GUWAHATI: From Sadiya to Dhubri, Assam celebrated the 90th birth anniversary of Bhupen Hazarika on Thursday.

Guwahati marked the occasion with celebrations across the city - the Bhupen Hazarika Memorial at Jalukbari, adjacent to Gauhati University, Dighilipukhuri, the Bhupen Hazarika Museum in Srimanta Sankardev Kalakshetra (SSK), among other places in and around the city.

"We paid tribute to our beloved Bhupen da at the Kalakshetra museum. We should strive to follow his ideals, his philosophy. That is the best possible way to keep his legacy alive," Padma Shree recipient Surjya Hazarika said. He is the vice president of SSK and compiler of Hazarika's long-listed works.

Former chief minister Tarun Gogoi, after paying tribute to the doyen, expressed his dismay over the absence of important dignitaries from the new state government.

"The Majuli programme could have been scheduled a day later or earlier. The day was an important one. There should have been a representation from the state government at the memorial site," Gogoi said.

On Hazarika's 90th birth anniversary, the state government declared the largest river island in the world, Majuli, as the 35th district of Assam. Because of the official function at Majuli, the representation of important ministers from the state government was negligible at the memorial site.

Amid all the fanfare and cultural extravaganza, senior Aasu leaders demanded that the Guwahati railway station be rechristened after Bhupen Hazarika.


"His former living quarters in the city should also be made into a site for heritage. More land should be given to the memorial site," said Aasu adviser Samujjal Bhattacharya.

দোহারের সুরে ভূপেন হাজারিকা উত্সবের সমাপ্তি

ভূপেন হাজারিকার গানে মিশে রয়েছে মানুষকে ভালোবাসার কথা। কথা সুর সবকিছুর মূল লক্ষ্য মানুষ। সেই মানুষ কখনো প্রেমিকা, কখনো নিরন্ন নিপীড়িত মানুষ। বাংলাদেশ ও ভারতের সাংস্কৃতিক সংগঠন মিলে মানুষের মাঝে সেই ভালোবাসার কথাই ছড়িয়ে দিল গানে গানে। দুই দিনের এ আয়োজনের শেষ দিন গতকাল বৃহস্পতিবার কলকাতার জনপ্রিয় ব্যান্ডদল দোহারের গানের সুরে শেষ হয় এ আয়োজন। সঙ্গীতজ্ঞ ভূপেন হাজারিকার ৯০তম জন্মজয়ন্তী উপলক্ষে শিল্পকলা একাডেমির জাতীয় নাট্যশালার মূল মিলনায়তনে যৌথভাবে এ আয়োজন করে ফ্রেন্ডস অব বাংলাদেশ ও বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমি। সহযোগিতায় ছিল ভূপেন হাজারিকা কালচারাল ট্রাস্ট।

সমাপনী আয়োজনে প্রধান অতিথি ছিলেন প্রধানমন্ত্রীর পররাষ্ট্র বিষয়ক উপদেষ্টা ড. গওহর রিজভী। বিশেষ অতিথি ছিলেন সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোটের সভাপতি গোলাম কুদ্দুছ, সাংবাদিক অজিত ভূইয়া ও সংসদ সদস্য পংকজ নাথ। আলোচনা করেন বিহারের সঙ্গীতশিল্পী কালিকা প্রসাদ ও স্বাগত বক্তব্য রাখেন বিএফইউজে সভাপতি মনজুরুল আহসান বুলবুল। সভাপতিত্ব করেন ফ্রেন্ডস অব বাংলাদেশের সমন্বয়ক এ এস এম সামছুল আরেফিন।

জন্মজয়ন্তী উপলক্ষে বুধ ও বৃহস্পতিবার ভূপেন হাজারিকার সঙ্গীত দর্শন ও গায়কি নিয়ে কর্মশালা আয়োজিত হয়। এতে প্রশিক্ষক ছিলেন ভূপেন হাজারিকার ভাইয়ের স্ত্রী মনীষা হাজারিকা ও লিয়াকত আলী লাকী।

The melody lingers on

‘Jookto’ is an initiative to connect people and minds from different cultures over similar ideas through multiple platforms.

Babul Supriyo, Minister of State for Heavy Industries and Public Enterprises, attended the event as a distinguished guest. During his speech, Supriyo, who himself is a singer, mentioned that he feels fortunate that he got a chance to work with Hazarika. He believes that the doyen singer continues to stay in people’s hearts and memories through his music and that his legacy should be carried forward.

“I do not believe in death. I think souls continue to live on even as the bodies cease to exist. He (Hazarika) is somewhere here, breathing with us and listening to the music that celebrates his name,” he added. ‘Jookto’ co-founder Subimal Bhattacharjee, while delivering the welcome speech called Hazarika a genius, and a rare human being who was God’s gift to mankind. “Bhupen Hazarika is an inspiration to the present and the future generations because of his message to the people to preserve humanity and to unite one and all” he said.

A panel involving Subhalakshmi Khan, Samudra Gupta Kashyap, Kumar Sanjay Krishna and Sanajay Hazarika discussed the music veteran’s contribution and work towards human integration and unity. The discussion was moderated by Utpal Borpujari.

During the discussion, the panelists shared their individual memories of Hazarika. Subhalakshmi Khan who was closely acquainted with Hazarika said, “He was the man of masses who knew what to compose according to situation.”

Violinist Sunita Bhuyan, and singer Ashimjyoti Baruah paid musical tributes to the singer. Bhuyan played various songs including ‘Buku Hum Hum Kare’ composed by Hazarika. She also played a fusion of Scottish and Assamese folk song.

The event also marked the launch of ‘Bordoisila’ an initiative to uphold, protect, and preserve the Assamese culture globally. It was followed by a video message from the film director Kalpana Lajami.


Born on September 8 1926, in Sadiya, Assam, Bhupen Hazarika is known for thousands of songs written and sung mainly in Assamese. He is also known for introducing Assamese folk song, music, and culture to the Hindi film industry.  He received various awards including Sangeet Natak Akademi Award, Padmshri, and Padmabhusan for his contributions to music industry.

Bhupen Hazarika - An epitome of humanity and love

It was a vivacious gathering of artistes and discussants of Assam, India and Bangladesh at the National Theatre Hall of Bangladesh Shilpakala Academy (BSA) on September 7. They came together in a two-day programme to celebrate the 90th birth anniversary of timeless singer Dr. Bhupen Hazarika, an Indian lyricist, musician, singer, poet and filmmaker from Assam.

The songs of Dr. Hazarika evoke humanity, love, communal amity, empathy, universal justice, brotherhood and have been translated and sung in many languages. Widely known as Sudhakantha, the influence of the legendary singer reaches beyond borders and continues to inspire the forthcoming artistes and generations for centuries.  

Asaduzzaman Noor, Cultural Affairs Minister, inaugurated the opening day's event as chief guest. In a moving speech, he reiterated to strengthen the cultural and fraternal ties between two countries. “This is a new beginning of cultural exchange between Assam and Bangladesh. I would like to emphasise on the close cultural affinity to emerge between the peoples of Bangladesh and all the states of India,” said Asaduzaman Noor.

Md. Shahriar Alam, State Minister for Foreign Affairs, attended the event as special guest. He shared memories of listening to Bhupen Hazarika's songs in his teens. He assured the gathering of inaugurating a deputy high-commission in Guwahati soon, to boost bilateral relations between Assam and other Northeast Indian states.       

Dr. Amarjyoti Choudhury, former Vice Chancellor of Guwahati University, Assam attended at the event as chief discussant. ASM Shamsul Arefin, coordinator, Friends of Bangladesh delivered welcome address. Anuradha Sharma Pujari, adviser, Bhupen Hazarika Cultural Trust, and Saumen Bharatiya, the co-founder of Byatikram and general secretary of the Assam chapter of Friends of Bangladesh spoke at the event. Hasan Arif, general secretary of Sammilito Sangskritik Jote, hosted the event. Liaquat Ali Lucky, DG of BSA, presided over the programme.

Liaquat Ali Lucky stole the show as an instant performer on the evening. He shared his memories with the legend. “I never think that Dr. Bhupen Hazarika is an artiste of Assam or India. He is an artiste of Bangladesh and the rest of the world. I am deeply inspired by his songs.” At the end of his speech, he soulfully rendered several songs -- “Ami Ek Jajabor”, “Sharat Babu Khola Chithi Dilam”, “Chokh Chol Chol Kore” and “We are in the same boat brother” by Bhupen Hazarika. 

A cultural programme followed on the theme “Traas Bhuley Danobere Naash Kori Aaye”. Noted Bangladeshi artistes -- Bulbul Islam and Khairul Anam Shakil performed songs “Bistirno Duparer” and “Ganga Amar Ma” respectively. Folk singer Dil Bahar Khan also rendered a song. Rupam Bhuiyan [of India] beautifully performed three songs including “Dil Hoom Hoom Kare” and “Sonar Boron Orey Pakhi Rey”, a Gwalior folk song.

Artistes of Sursangam dance troupe from India wrapped up the opening day's performance with presenting Ganesh Vandana and an experimental piece “Somoyer Ogrogoti” in Kathak style.

Dr. Gowher Rizvi, international affairs adviser to the Prime Minister, attended the concluding day's (September 8) event as chief guest while folk music troupe Dohar (India) performed songs in the evening.  


Friends of Bangladesh, Dhaka and BSA in association with Bhupen Hazarika Cultural Trust, Assam and Byatikram organised the programme. Ministry of Cultural Affairs of Bangladesh sponsored the programme.
By: Zahangir Alom  ,Source : thedailystar.net

Friday, September 9, 2016

Few Birthday tweets



Source : Sadin , 09 Sep 2016

Source : niyomiyabarta.org , 08 Sep 2016

Source : niyomiyabarta.org , niyomiyabarta.org , 08 Sep 2016

Source : niyomiyabarta.org , 08 Sep 2016

Source : niyomiyabarta.org , 08Sep 2016

Source : Dainik Janambhumi , 09 Sep 2016

Source : Dainik Janambhumi , 08 Sep 2016 


The Committed poet-singer

Source : The Assam Tribune , 09 Sep 2016 

Bhupen Hazariaka and Jyoti Prasad Agarwala

Source : Dainik Asam , 08Sep2016

কথা আর সুরে শেষ হলো ‘ভূপেন হাজারিকা উৎসব’

উপমহাদেশের বরেণ্য সংগীতশিল্পী ভূপেন হাজারিকা ছিলেন বাংলাদেশের অকৃত্রিম বন্ধু। তাঁর গান এ দেশের মুক্তিসংগ্রামে অনুপ্রেরণা দিয়েছিল। মহান মুক্তিযুদ্ধে বিশেষ অবদানের স্বীকৃতিস্বরূপ বাংলাদেশ সরকার তাঁকে জানিয়েছে সম্মাননা। গতকাল ৮ সেপ্টেম্বর ছিল বাংলাদেশের অকৃত্রিম বন্ধু-একাধারে গায়ক, সুরকার ও কবি ভূপেন হাজারিকার নব্বইতম জন্মজয়ন্তী। তাঁর জন্মদিন উপলক্ষে অনুষ্ঠিত হয়েছে দুদিনের বিশেষ আয়োজন ‘ভূপেন হাজারিকা উৎসব’।

ভূপেন হাজারিকার কথা আর গানের মূলমন্ত্র ‘ভালোবাসা’। এই মন্ত্র হৃদয়ে ধারণ করে তাঁর রেখে যাওয়া আলোর উজ্জ্বলবর্তিকায় ‘সৌহার্দ্য ও ভ্রাতৃত্বের দিগন্ত’ প্রসারিত হবে—এ প্রত্যাশায় অনুষ্ঠিত হয়  ‘ভূপেন হাজারিকা উৎসব’। বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমি ও ফ্রেন্ডস অব বাংলাদেশ- এর যৌথ আয়োজনে এবং ভারতের ‘ভূপেন হাজারিকা কালচারাল ট্রাস্ট’-এর সহযোগিতায় ৭ সেপ্টেম্বর শুরু হয় এই আয়োজন।

গতকাল বৃহস্পতিবার ছিল এই আয়োজনের সমাপনী দিন। শেষ দিনের এই আয়োজনে কথামালা আর কলকাতার জনপ্রিয় ব্যান্ডদল ‘দোহার’ গানের সুরে স্মরণ করেছে বরেণ্য এই সংগীতজ্ঞকে।
সমাপনী দিনে প্রধান অতিথি ছিলেন প্রধানমন্ত্রীর পররাষ্ট্রবিষয়ক উপদেষ্টা ড. গওহর রিজভী। বিশেষ অতিথি ছিলেন সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোটের সভাপতি গোলাম কুদ্দুছ, সাংবাদিক অজিত ভূইয়া ও সংসদ সদস্য পংকজ নাথ। অনুষ্ঠানে আলোচনা করেন বিহারের সংগীতশিল্পী কালিকা প্রসাদ। স্বাগত বক্তব্য রাখেন বাংলাদেশ ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়নের (বিএফইউজে) সভাপতি মনজুরুল আহসান বুলবুল। সভাপতিত্ব করেন ফ্রেন্ডস অব বাংলাদেশের সমন্বয়ক এ এস এম সামছুল আরেফিন।

স্মৃতিচারণ করে ড. গওহর রিজভী বলেন, ‘কিংবদন্তি এই শিল্পী এসেছিলেন আমার বাসায়। আমার বাসায় তাঁর গানের আসর বসেছিল। সে স্মৃতি কখনো ভোলার নয়।’

পশ্চিমবঙ্গের গানের দল ‘দোহার’-এর প্রধান কালিকা প্রসাদ নানা স্মৃতিচারণা করে বলেন, ‘পঞ্চাশ-ষাটের দশকে তিনি বাংলা গানে একটি নতুন ধারা সৃষ্টি করেছিলেন। আস্থাহীনতার বিপরীতে তিনি আস্থার গান গেয়েছেন। আধুনিক গানে তিনি মানুষের কথা বলেছেন, জীবনের কথা বলেছেন।’
সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোটের সভাপতি গোলাম কুদ্দুছ বাংলাদেশের ‘পরম বন্ধু’ ভূপেন হাজারিকা স্মরণে বলেন, ‘মনুষ্যত্ববোধের অবমাননা যখনই হয়েছে, তখনই তার প্রতিবাদে বেজেছে তাঁর গান। মানবিকতার বিরুদ্ধে অগণতান্ত্রিক স্বৈরাচারী শাসক, অসাম্প্রদায়িকতা যখন ফণা তুলেছিল, তখন তাঁর গান আমাদের প্রতিবাদী করে।’

আসামের সাংবাদিক অজিত ভূঁইয়া বলেন, ‘ভূপেন হাজারিকা তাঁর কালে হয়ে উঠেছিলেন সাম্যবাদের প্রবক্তা।’

সবশেষে লোকগানের দল ভারতের দোহারের শিল্পীরা গেয়ে শোনান ‘মানুষ মানুষের জন্য’, ‘দোলা হে দোলা’, ‘গান হোক বহু আস্থাহীনতার বিপরীতে এক গভীর আস্থার গান’, ‘জীবন খুঁজে পাবি ছুটে ছুটে আয়’সহ ভূপেন হাজারিকা আর নিজেদের জনপ্রিয় সব গান।

এ উৎসব উপলক্ষে গত বুধ ও বৃহস্পতিবার ভূপেন হাজারিকার সংগীত দর্শন ও গায়কী নিয়ে কর্মশালা অনুষ্ঠিত হয়। এ কর্মশালায় প্রশিক্ষক ছিলেন ভূপেন হাজারিকার ভাইয়ের সহধর্মিণী মনীষা হাজারিকা ও লিয়াকত আলী লাকী।

Thursday, September 8, 2016

Bhupen Hazarika: Cultural colossus from India’s northeast

How does one analyse the genius of a multi-faceted icon like Bhupen Hazarika? The biggest danger lies in ending up highlighting one aspect, at the cost of missing out on the overall persona. However, it can safely be said Hazarika was one of the colossal cultural personalities of northeast India -- with a deep social commitment and profound political consciousness.

He had a magnificent oeuvre -- a good poet, music composer, singer, actor, journalist, author and filmmaker of the highest order. And his intellect and scholarship combined to make him a true-blue cultural philosopher of not only Assam, but of the entire northeast.

Two telling comments made after Hazarika’s death on November 5, 2011, aged 85, aptly bring out the range of his achievement and the wide impact that he made over a span of 70 years.

Writing for The Guardian, Asjad Najir pointed out that Hazarika had “used music, cinema and the written word to stitch political ideology and ancient traditions into the fabric of popular culture”.

National award-winning critic and acclaimed filmmaker Utpal Borpujari was very direct: “The kind of impact this genius has had in the socio-cultural-political space of a huge geographic region comprising the northeast India, West Bengal and Bangladesh would be hard to grasp for anyone who does not understand the Assamese and Bengali languages.”


Born on September 8, 1926, in Sadiya, Assam, Hazarika -- the eldest of 10 children -- said he inherited his voice from his mother, “who regularly sang lullabies to me as a child”.



ভূপেন হাজারিকা-কল্পনা লাজমি: চিরদিনের সঙ্গী

দুজনের বয়সের ব্যবধানও ছিল অনেক। ১৯৭১ সালে দুজনের প্রথম দেখা হয়। ১৭ বছর বয়সী কল্পনা লাজমী তখন সেন্টজেভিয়ার্স কলেজের মনোবিজ্ঞানের ছাত্রী ছিলেন। ভূপেন হাজারিকার বয়স তখন ৪৫ বছর।

ভূপেন তখন লাজমির কাকা আত্মারামের একটি ছবিতে সংগীত পরিচালনার কাজ করছিলেন। সেসময়ই তিনি দারুণ জনপ্রিয় ও প্রতিষ্ঠিত গায়ক এবং সংগীতজগতের কিংবদন্তিরূপে স্বীকৃত।
ভূপেন হাজারিকার জন্ম আসামের সাদিয়াতে ১৯২৬ সালের ৮ সেপ্টেম্বর। ছোটবেলা থেকেই আসামের লোকজ গানের জগতে তিনি ছিলেন স্বচ্ছন্দ। লেখাপড়া করেছেন আসামের সোনারাম, তেজপুর, ধুবড়ি এবং বানারস বিশ্ববিদ্যালয়ে।
স্কুলজীবন থেকেই গান করেছেন মঞ্চে, বিভিন্ন অনুষ্ঠানে। চলচ্চিত্রের গানেও কণ্ঠ দিয়েছেন তরুণ বয়স থেকেই।১৯৪৯ সালে তিনি স্কলারশিপ নিয়ে আমেরিকার কলম্বিয়া বিশ্ববিদ্যালয়ে যান। সেখানে পিএইচডি করেন।
সেখানে প্রখ্যাত লেখক পল রবসনের সঙ্গে তার বন্ধুত্ব গড়ে ওঠে। পল রবসনের মানবতামুখী চিন্তায় প্রভাবিত হন ভূপেন হাজারিকা। তার লেখা গানে ফুটে ওঠে মানবতার কথা।
কলম্বিয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্যাম্পাসেই তার সঙ্গে পরিচয় হয় গবেষক প্রিয়ংবদা প্যাটেলের। ১৯৫০ সালে তারা বিয়ে করেন। এই দম্পতির একমাত্র সন্তান তেজ হাজারিকা।
১৯৫৩ সালে ভূপেন হাজারিকা ভারতে ফিরে আসেন। প্রিয়ংবদার সঙ্গে তার বিবাহবিচ্ছেদ হয়নি কখনও। কিন্তু তারা পৃথক বসবাস করতেন। তাদের মানসিক দূরত্বও ছিল বিশাল। প্রিয়ংবদা যুক্তরাষ্ট্রেই থেকেছেন আজীবন।
দেশে ফিরে ভূপেন হাজারিকা গৌহাটি বিশ্ববিদ্যালয়ে কিছু দিন শিক্ষকতা করেন। পরে তিনি কলকাতায় চলে আসেন এবং চলচ্চিত্রে সংগীত পরিচালনা শুরু করেন। পাশাপাশি আইপিটিএ-র(ভারতীয় গণনাট্য সংঘ) সক্রিয়কর্মী ও নেতা হিসেবে গণনাট্যের কাজ চালিয়ে যান।
এই সময়ই তিনি মূলত গণমুখী সংগীত রচনা করেন এবং গান গেয়ে বিপুল জনপ্রিয়তা পান। চলচ্চিত্রেও তিনি সাফল্য পান বটে, কিন্তু গণমুখী গানই তাকে নিয়ে যায় জনপ্রিয়তার শীর্ষে।
কল্পনা লাজমি এ‌সেছিলেন এক অগ্রসর পরিবার থেকে। মামা গুরু দত্ত ছিলেন বিখ্যাত চলচ্চিত্র ব্যক্তিত্ব। মা ললিতা লাজমি ছিলেন শিল্পী। পুরো পরিবারই সংস্কৃতি ও চলচ্চিত্রের সঙ্গে জড়িত ছিল।
কিশোর বয়স থেকেই কল্পনা লাজমি ভক্ত ছিলেন ভূপেন হাজারিকার। এই জীবন্ত কিংবদন্তির সঙ্গে পরিচয়ের পর তিনি তার প্রেমে না পড়ে থাকতে পারেননি। তিনি শুধু প্রেমিকা হয়েই থেমে থাকেননি। তিনি তার সহকারী ও ম্যানেজার হিসেবে কাজ শুরু করেন।
ব্যক্তি জীবনে ভূপেন হাজারিকা ছিলেন নিঃসঙ্গ; ভীষণভাবে অগোছালো, বেহিসাবী এবং খেয়ালি ধরনের। এই অগোছালো প্রতিভাবান মানুষটির জীবনে রীতিমতো আশীর্বাদ হয়ে আসেন তরুণী কল্পনা। ১৯৭৬ সালের দিকে কল্পনা সরাসরি ভূপেনের ফ্ল্যাটে চলে যান এবং একত্রে বাস করতে থাকেন।
তাদের পরিবার যথেষ্ট অগ্রসর হলেও এই সম্পর্ক মেনে নেওয়া কল্পনার বাবা-মায়ের জন্য বেশ কষ্টকর ছিল।তারা ভেবেছিলেন, এই প্রেম বেশিদিন টিকবে না, মোহভঙ্গ হবে তাদের মেয়ের। কিন্তু কল্পনা কোনো বাধাই মানেননি।
সেসময় কলকাতায় ভূপেনের ফ্ল্যাটে তাদের সংসার গড়ে ওঠে।
ভূপেন হাজারিকা বিয়ে করতে ভয় পেতেন। প্রথম দাম্পত্যের স্মৃতি তার পক্ষে ভালো ছিল না। তিনি মদ্যপান করতেন প্রচুর।
কল্পনা প্রথমদিকে একেবারে বিপর্যস্ত হয়ে পড়েন এই প্রেমিককে সামলাতে। তবে ধীরে ধীরে তাদের মধ্যে চমৎকার বোঝাপড়া গড়ে ওঠে।
চলচ্চিত্রকার হিসেবে নিজেকে গড়ে তোলেন কল্পনা লাজমি। ১৯৮৬ সালে কল্পনা চলচ্চিত্র পরিচালনায় হাত দেন। তার প্রথম ছবি‘একপল’ গড়ে ওঠে আসামের চাবা গানের পটভূমিতে মৈত্রেয়ী দেবীর লেখা গল্প অবলম্বনে। শাবানা আজমী, ফারুক শেখ ও নাসিরুদ্দিন শাহ অভিনীত ছবিটির সংগীত পরিচালনার ভার নেন ভূপেন হাজারিকা। ছবিটি ব্যাপক প্রশংসা পায়।
সম্পর্কের প্রথমদিকে প্রায় বছর দশেক জনসমক্ষে বা কোনো অনুষ্ঠানে, পার্টিতে ভূপেন তার প্রেমিকাকে ম্যানেজার হিসেবে পরিচয় করাতেন। আশির দশকের মাঝামাঝি সময়ে তিনি তাকে সঙ্গী হিসেবে পরিচয় করাতে শুরু করেন।
পরবর্তীতে কল্পনা লাজমির অন্যান্য ছবিতেও সংগীত পরিচালনার কাজ করেন ভূপেন হাজারিকা। লাজমি পরিচালিত ‘রুদালি’ ছবির সংগীতের কাজ ছিল অসাধারণ।
আসামের সন্তান হওয়া সত্ত্বেও ভুপেন হাজারিকা ছিলেন মনেপ্রাণে বাঙালি এবং বিশ্বনাগরিক। তার মৃত্যুর পর একাধিক পত্রিকায় সাক্ষাৎকারে কল্পনা লাজমি তার প্রেমিকের বাঙালিত্ব এবং বিশ্বনাগরিকত্বের দিকটি তুলে ধরেছেন।
ভূপেন ভালোবাসতেন বাঙালি রান্না। সর্ষে ভাপা চিংড়ি ও কষানো মাংস তার প্রিয় খাবার ছিল। কল্পনাও তার জন্য বাঙালি খাবার রাঁধতে ভালোবাসতেন। সন্ধ্যাবেলাগুলো তারা কাটাতেন সংগীত ও টেলিভিশনের অনুষ্ঠান দেখে।
হাজারিকার নারীভক্তের অভাব ছিল না। তিনি নারীদের সঙ্গও বেশ পছন্দ করতেন। তবে তিনি ছিলেন লাজমির প্রতি বিশ্বস্ত।
১৯৯৬ সালে তারা মুম্বাইতে কল্পনা লাজমির ফ্ল্যাটে চলে আসেন। আজীবন বামপন্থি ভূপেন যখন হঠাৎ করে বিজেপিতে যোগ দিয়ে নির্বাচন করেন এবং পরাজিত হন সেসময় অনেকেই এটা মেনে নিতে পারেননি। তারা কল্পনা লাজমিকে এজন্য দায়ী করেন। কিন্তু কল্পনার মতে, এটি ছিল ভূপেনের তাৎক্ষণিক আবেগগত সিদ্ধান্ত।মূলত, কংগ্রেসবিরোধিতা থেকেই এই হঠকারী সিদ্ধান্ত নিয়েছিলেন তিনি।
নতুন সহস্রাব্দের শুরু থেকেই ভূপেন হাজারিকা অসুখে ভুগতে থাকেন। লাজমি সেসময় অসুস্থ সঙ্গীর সেবাকাজ করতে গিয়ে নিজের ব্যস্ততা কমিয়ে দেন। ভূপেন সেসময় তাকে বিয়ে করতে চেয়েছিলেন। কিন্তু লাজমি রাজি হননি। তিনি বলেন, “এত বছর পর আর বিয়ে করা বা না করায় কিছুই আসে যায় না। কারণ সত্যিকারের ভালোবাসা বিয়ে করা বা না করার উপর নির্ভর করে না।”
২০১১ সালের ৫ নভেম্বর ৮৫ বছর বয়সে মৃত্যু হয় ভূপেন হাজারিকার। তিনি দাদা সাহেব ফালকে, পদ্মভূষণ, পদ্মশ্রী, পদ্মবিভূষণসহ বিভিন্ন পুরস্কার পেয়েছেন।
এই কিংবদন্তি শিল্পীর মৃত্যুতে কল্পনা লাজমি শোকে ভেঙে পড়েন। তার জন্য এই মৃত্যু ছিল মর্মান্তিক।
এক সাক্ষাৎকারে কল্পনা বলেন, “চোখের সামনে নিজের ভালোবাসার মানুষটি ধীরে ধীরে আগুনে পুড়ে ছাই হয়ে যাচ্ছে, এ দৃশ্য সহ্য করা যায় না। তার মৃত্যু মেনে নিতে মনের সঙ্গে অনেক সংগ্রাম করতে হয়েছে।”
কল্পনা লাজমি ও ভূপেন হাজারিকা ছিলেন পরস্পরের ভালোবাসায় ৩৯ বছর ধরে ডুবে থাকা দু’জন মানুষ। আর কল্পনা লাজমির কাছে তার ভালোবাসার মানুষটি চিরদিন বেঁচে থাকবেন স্মৃতি ও সংগীতের মাঝে।

Movie Poster of Chikmik Bijuli -1969


Remembering ‘Jajabor’ Bhupen Hazarika

Hazarika’s music encompasses the entire world, reflecting the mood and passion of the oppressed and downtrodden

Bhupen Hazarika was a singer who sang for all of mankind. “Ami Ek Jajabor,” “Aj Jibon Khuje Pabi,” “Dola Hey Dola”- each of his songs has a story associated with it which express the inner feelings of common people. The great singer, lyricist from Assam was born September 8, 1926. Known as the “Bard of Brahmaputra,” whose voice fell silent on November 5, 2011.

Hazarika’s music encompasses the entire world, reflecting the mood and passion of the oppressed and downtrodden. Hailed as the uncrowned king of the lands of the entire North-east, Bengal and Bangladesh, Hazarika sang his first song “Biswa Nijoy Nojowan,” in the second Assamese film, Indramalati, back in 1939 at the tender age of 12 and since then, there was no looking back.

In addition to his native Assamese, Hazarika composed, wrote and sang for numerous Bengali and Hindi films from the 1930s to the 1990s alongside other songs. He was also one of the leading author-poets of Assam with more than 1,000 lyrics and several books of short stories, essays, travelogues, poems and rhymes for children.

Hazarika produced and directed, composed music and sang for iconic Assamese films like Era Batar Sur, Shakuntala, Lotighoti, Pratidhwani, Chick Mick Bijuli, Swikarokti and Siraj. His most famous Hindi films include his long-time companion Kalpana Lajmi’s Rudaali, Ek Pal, Darmiyaan, Daman and Kyon, Sai Paranjpe’s Papiha and Saaz, Mil Gayee Manzil Mujhe and MF Husain’s Gajagamini.

On his birthday, singers and musicians from India and Bangladesh will pay a special tribute to the doyen of Assam music at an event in London, this month.

The special concert on September 16 is being organised by social organisation Friends of Assam and Seven Sisters (FASS) in collaboration with the Nehru Centre, the cultural wing of Indian High Commission celebrating his 90th birthday.

Nahid Afrin, the young singer from Assam who was the runner-up in the last edition of Indian Idol Junior and famous accordion player, Romen Choudhury will be among the several artistes from India and Bangladesh who will perform at the event.


The event will be chaired by Virander Paul, deputy high commissioner of India, while Khondeker M Talha, acting high commissioner of Bangladesh, is expected to be the guest of honour.


Wednesday, September 7, 2016

ঢাকায় ‘ভূপেন হাজারিকা জন্মোৎসব’ শুরু

বুধবার (৭ সেপ্টেম্বর) উপমহাদেশের বরেণ্য সংগীতশিল্পী ভূপেন হাজারিকার ৯০তম জন্মজয়ন্তী উপলক্ষে শিল্পকলায় শুরু হয়েছে দুদিনের অনুষ্ঠানমালা।

কালজয়ী অংসখ্য বাংলা গানের শিল্পী ভূপেন হাজারিকা। মানবতাবাদী এ শিল্পী বাংলাদেশের অকৃত্রিম বন্ধু। তার গান এ দেশের মুক্তিসংগ্রামে অনুপ্রেরণা দিয়েছিল। ‘আমি এক যাযাবর’, ‘গঙ্গা আমার মা’, ‘মানুষ মানুষের জন্যে’-সহ তার এমন অনেক ভুবনজয়ী গান এখনো মানুষের মুখে মুখে ফেরে।

বুধবার সন্ধ্যায় শিল্পকলা একাডেমির জাতীয় নাট্যশালার প্রধান মিলনায়তনে এ আয়োজনের উদ্বোধন করেন সংস্কৃতিমন্ত্রী আসাদুজ্জামান নূর। একাডেমির মহাপরিচালক লিয়াকত আলী লাকীর সভাপতিত্বে মুখ্য আলোচক হিসেবে উপস্থিত ছিলেন গোহাটি বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক উপাচার্য ড. অমর জ্যোতি চৌধুরী। বিশেষ অতিথি ছিলেন পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলম, ভূপেন হাজারিকা কালচারাল ট্রাস্টের উপদেষ্টা অনুরাধা শর্মা পূজারী। ধন্যবাদ জ্ঞাপন করেন ফ্রেন্ড অব বাংলাদেশ, আসাম অংশের সাধারণ সম্পাদক সৌমেন ভারতীয়া। আলোচনা শেষে উদ্বোধনী দিনে সঙ্গীত পরিবেশন করেন আসামের শিল্পী রূপম ভূঁইয়া। এই শিল্পী শুরুতেই গাইলেন ভূপেন হাজারিকার কণ্ঠে গাওয়া বাংলা গান ‘আকাশি গঙ্গা’, হিন্দি ‘দিল হুম হুম কারে’, এরপর তিনি গাইলেন আসামের কামরূপী ফোক গান ‘হে মাই যশোয়া’। এই গানের রেশ কাটতে না কাটতে গাইলেন আসামের আরেক ফোক গান ‘সোনার বরণ পাখিরে’। এ ছাড়াও ভূপেন হাজারিকার কয়েকটি গানের সঙ্গে কোলাজ নৃত্য পরিবেশন করে ভারতের নাচের দল সুরঙ্গম নৃত্যদলের দুই শিল্পী। এর আগে অনুষ্ঠানের সূচনা হয় ‘জয় জয় নবজাত বাংলাদেশ’ ও ‘আজ জীবন খুঁজে পাবি, ছুটে ছুটে আয়’ গানের সঙ্গে দলীয় নৃত্য পরিবেশনের মধ্য দিয়ে। অনুষ্ঠান সঞ্চালনা করেন হাসান আরিফ।

আসাদুজ্জামান নূর বলেন, ‘একাত্তরে মুক্তিযুদ্ধে ভূপেন হাজারিকার গান আমাদের অনুপ্রাণিত করেছিল। বাংলাদেশের অকৃত্রিম বন্ধু হিসেবে তিনি সহযোগিতা করেছিলেন মুক্তিযোদ্ধাদের। সাহায্যের হাত বাড়িয়েছিলেন শরণার্থীদের জন্য। তার এই ঋণ বাংলাদেশের মানুষ কখনো ভোলেনি।’
পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলম বলেন, ‘ভূপেন হাজারিকার গান এখনো মানুষের কাছে সঠিকভাবে পৌঁছায়নি।’ রাজনীতিতে আসার ক্ষেত্রে ভূপেন হাজারিকার গান তাকে অনুপ্রাণিত করেছে বলে উল্লেখ করেন মন্ত্রী।

অনুরাধা শর্মা পূজারী বলেন, ‘ভূপেন হাজারিকা ছিলেন মানবতা পূজারী। যেখানেই মানবতা ভূলুণ্ঠিত হয়েছে সেখানেই তিনি গান নিয়ে মানুষের পাশে দাঁড়িয়েছেন। বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধের সময় তিনি এ দেশের মানুষের পাশে দাঁড়িয়েছিলেন। বাড়িয়ে দিয়েছিলেন বন্ধুত্বের হাত।’

বৃহস্পতিবার উৎসবের দ্বিতীয় এবং সমাপনী দ্বিতীয় দিন সন্ধ্যায় ফ্রেন্ডস অব বাংলাদেশের সমন্বয়ক এ এস এম সামছুল আরেফিনের সভাপতিত্বে স্বাগত বক্তব্য রাখবেন সাংবাদিক মনজুরুল আহসান বুলবুল। আলোচনা করবেন সঙ্গীতশিল্পী কালিকা প্রসাদ। বিশেষ অতিথি থাকবেন পংকজ দেবনাথ এমপি, সাংবাদিক অজিত ভূঁইয়া ও সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোটের সভাপতি গোলাম কুদ্দুছ। প্রধান অতিথি থাকবেন প্রধানমন্ত্রীর পররাষ্ট্রবিষয়ক উপদেষ্টা গওহর রিজভী। সমাপনী আয়োজনে ভারতের লোকগানের দল দোহারের শিল্পীরা সঙ্গীত পরিবেশন করবেন।